আমি তার মুখে একটু হাসি দেখেছি: ফখরুল

নিজস্ব প্রতিবেদক

‘আমি গতকাল রাতে ম্যাডামকে (খালেদা জিয়া) দেখতে গিয়েছিলাম হাসপাতালে। গতকাল দেখে একটু ভালো লেগেছে, ভালো লেগেছে যে, আমি তার মুখে একটু হাসি দেখেছি। যেটা এই কদিন ছিল না, একেবারেই ছিল না’।

শুক্রবার (২১ মে) জাতীয় প্রেসক্লাবে এক অনুষ্ঠানে দলের চেয়ারপারসন বেগম খালেদা জিয়ার শারীরিক অবস্থার উন্নতির কথা তুলে ধরতে এ কথা বলেন দলের মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর।

তিনি বলেন, গতকাল আমি ডাক্তারদের কাছ থেকে তার চিকিৎসার যে তথ্য পেয়েছি সেটা হচ্ছে যে, তার অক্সিজেন স্যাচুরেশন এখন বেশ ভালো। তার টেম্পারেচার এখন নেই এবং তার শ্বাসকষ্টও নেই।

তবে কোভিড পরবর্তী জটিলতায় খালেদা জিয়ার হৃদযন্ত্র ও কিডনি কিছুটা ‘অ্যাফেক্টেড’ হওয়ায় চিকিৎসকরা উদ্বিগ্ন জানিয়ে তিনি বলেন, তারা চেষ্টা করছেন যে, এটাকে কি করে তারা নিরাময় করবেন। ডাক্তাররা আমাদের যেটা বলেছেন যে, তার উন্নত চিকিৎসা উন্নত সেন্টারে যেখানে সমস্ত ইকুপমেন্টগুলো আছে যেগুলো দিয়ে এই ধরনের চিকিৎসাগুলো করা সম্ভব, যেটা এখানে নেই। এখানেও (এভারকেয়ার হাসপাতাল) ভালো। কিন্তু সেগুলো এভেলেবল না। এই কারণেই পরিবারের পক্ষ থেকে খালেদা জিয়ার বিদেশে চিকিৎসার জন্য সরকারের কাছে আবেদন করা হলেও ‘সুস্থ হয়ে তাদের বিরুদ্ধে কাজ শুরু করবেন’ ভয়ে সেটা দেয়নি।

তিনি জানান, খালেদা জিয়ার মেডিক্যাল বোর্ড প্রতিদিন তার অবস্থা ‘মনিটর’ করে চিকিৎসা দেওয়ার চেষ্টা করছে। একইসঙ্গে তারা আমেরিকা ও ইংল্যান্ড দুই দেশে চিকিৎসকদের সঙ্গে যোগাযোগ রাখছে।

জাতীয়তাবাদী মহিলা দলের উদ্যোগে সাংবাদিক রোজিনা ইসলাম, রুহুল আমিন গাজী, রাজনৈতিক নেত্রী নিপুণ রায় চৌধুরীসহ রাজবন্দিদের মুক্তির দাবিতে এই আলোচনা সভা হয়।

বিএনপি মহাসচিব বলেন, এই সরকার সবচেয়ে বড় সর্বনাশ করেছে দেশের সমস্ত গণতান্ত্রিক প্রতিষ্ঠানগুলোকে ধ্বংস করে দিয়েছে। আজকে রোজিনা ইসলাম, এটা কোনো বিচ্ছিন্ন ঘটনা নয়। সরকার রোজিনাকে দিয়ে সব সাংবাদিকদের ‘শিক্ষা’ দিতে চায়। তারা মানুষকে ভয় দেখিয়ে স্তব্ধ করে দিতে চায়। এর আগে সাগর-রুনিকে হত্যা করা হয়েছে। শফিক রেহমানের মতো মানুষকে ২১দিন ফ্লোরে শুয়ে থাকতে হয়েছে। রুহুল আমীন গাজী কারাগারে। বিএনপি নেত্রী নিপুণ রায়ের জামিন হয় না। আমাদের এখন একটাই পথ, এই দানবকে সরাতে হবে। এর কোনো বিকল্প নেই।

মহিলা দলের সভানেত্রী আফরোজা আব্বাসের সভাপতিত্বে ও যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক হেলেন জেরিন খানের পরিচালনায় আলোচনা সভায় বিএনপির স্থায়ী কমিটির সদস্য গয়েশ্বর চন্দ্র রায়, সাংবাদিক শওকত মাহমুদ, আবদুল হাই শিকদার, কাদের গনি চৌধুরী, মহিলা দলের নেত্রী নাজমুন নাহার বেবী, নেওয়াজ হালিমা আরলী, নিলোফার চৌধুরী মনি প্রমুখ বক্তব্য রাখেন।

কেআরআর

সংবাদ সম্পর্কে আপনার মতামত দিন
তুমি এটাও পছন্দ করতে পারো
error: Content is protected !!