আশুলিয়ায় শিশু শিক্ষার্থীকে ধর্ষণচেষ্টা, মাদরাসা শিক্ষক পলাতক

উপজেলা প্রতিবেদক

সাভারের আশুলিয়ায় মাদরাসার এক শিশু (৮) শিক্ষার্থীকে ধর্ষণচেষ্টার অভিযোগ উঠেছে। এঘটনার পর থেকে মাদরাসায় তালা লাগিয়ে পলাতক রয়েছেন অভিযুক্ত মাদরাসার শিক্ষক আব্দুল আজিজ। তবে মাদরাসাটির ভবন মালিকের বিরুদ্ধে ওই শিক্ষককে পালাতে সহায়তার অভিযোগ করেছেন স্থানীয়রা।

মঙ্গলবার (৩০ সেপ্টেম¦র) সন্ধ্যায় গাজীরচট আয়নাল মার্কেট এলাকার দারুল কুরআন নূরানী হাফিজিয়া মডেল মাদরাসায় এই ঘটনা ঘটে।

ভুক্তভোগী শিশু শিক্ষার্থীর গার্মেন্ট শ্রমিক মা জানান, আয়নাল মার্কেট এলাকায় ভাড়া বাসায় থেকে তিনি গার্মেন্টে চাকরি করেন। তার স্বামী পেশায় একজন রিকশাচালক। প্রতিদিনের মত গতকাল সকাল ৭টায় তাদের ছোট্ট মেয়েকে ওই মাদরাসায় রেখে কাজে চলে যান তারা। পরে সন্ধ্যায় মেয়েকে বাসায় নিয়ে গেলে ওই শিক্ষকের বিরুদ্ধে অভিযোগ করে সে ।

রিকশাচালক বাবা জানান, সন্ধ্যার পর সবার ছুটি হয়ে গেলে তার মেয়েকে চকলেটের প্রলোভন দেখিয়ে নিজ কক্ষে নিয়ে যান শিক্ষক আব্দুল আজিজ। পরে তার মেয়ের স্পর্শকাতর স্থানে সাবান লাগিয়ে ধর্ষণচেষ্টা করেন ওই শিক্ষক। পরে লোকজনের উপস্থিতি টের পেয়ে তাদের মেয়েকে বাসায় পাঠিয়ে দেন শিক্ষক আজিজ।

নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক এক প্রত্যক্ষদর্শী জানান, ওই মাদরাসার শিক্ষকের কূ-কৃত্তি জানাজানির পর বাড়িওয়ালা আব্দুর রাজ্জাক ও স্থানীয় মাদবররা অভিযুক্ত শিক্ষককে বাড়ির একটি কক্ষে তালাবদ্ধ করে রাখেন। কিন্তু সকালে বাড়ির মালিক তাকে কৌশলে ছেড়ে দেন। এছাড়া অনুমোদনহীন এই মাদরাসায় কেবল একজন শিক্ষক দিয়ে প্রায় ২০-২৫ শিক্ষার্থীকে কোনমতে শিক্ষা দেয়া হতো বলে অভিযোগ করেন তিনি।

এ ব্যাপারে বাড়ির মালিক আব্দুর রাজ্জাক খানের কাছে জানতে চাইলে তিনি উত্তেজিত হয়ে ওঠেন। এমনকি পলাতক অভিযুক্ত মাদরাসা শিক্ষকের পরিচয় জানাতে অস্বীকৃতি জানান।

এ ব্যাপারে আশুলিয়া থানার উপ-পরিদর্শক (এসআই) ফজর আলী জানান, ওই শিশু শিক্ষার্থীকে ধর্ষণচেষ্টার ঘটনায় থানায় একটি মামলা দায়েরের প্রস্তুতি চলছে। একই সাথে অভিযুক্ত শিক্ষককে গ্রেফতারের চেষ্টা অব্যাহত রয়েছে বলেও জানান তিনি।

সংবাদ সম্পর্কে আপনার মতামত দিন
তুমি এটাও পছন্দ করতে পারো
error: Content is protected !!
%d bloggers like this: