আশুলিয়ায় নিখোঁজের দুই দিন পর শিশুর লাশ উদ্ধার

উপজেলা প্রতিবেদক

সাভারের আশুলিয়ায় নিখোঁজের দুই দিন পর বাড়ির পাশেই একটি গলিতে দ্বিতীয় শ্রেণীর এক শিশু শিক্ষার্থীর লাশ পাওয়া গেছে। এঘটনায় জিজ্ঞাসাবাদের জন্য প্রতিবেশী মুদি দোকানী রফিকুল ইসলামকে জিজ্ঞাসাবাদের জন্য আটক করেছে পুলিশ। নিহতের পরিবারের অভিযোগ, প্রতিবেশী শিশুর সাথে তুচ্ছ ঘটনায় গন্ডগোলের জেরে আসিফকে হত্যা করা হয়েছে।

মঙ্গলবার সকালে আশুলিয়ার পূর্ব কলতাসূতি এলাকায় ভাড়া বাসার পাশে একটি গলি থেকে ওই শিশুর মরদেহ উদ্ধার করে পুলিশ।
মোহাম্মদ আসিফ (৮) দি হোম ক্যাডেট স্কুলের দ্বিতীয় শ্রেণীর শিক্ষার্থী। সে তার পরিবারের সাথে আশুলিয়ার পূর্ব কলতাসূতি এলাকায় ভাড়া বাসায় থাকতো। বাবা জুয়েল খান পরিবহনা চালক ও মা গৃহিনী। এক ভাই বোনের মধ্যে আসিফ ছোট।

নিহতের বাবা জুয়েল খান জানান, ১১ অক্টোবর বিকেল সাড়ে ৫টার দিকে তার স্ত্রী বাড়ির পাশে দোকানে যান। দশ মিনিট পর মায়ের পিছনে বাইরে যায় ছেলে আসিফ। পথে অপরিচিত দুই যুবক বাড়ি থেকে ৬’শ গজ দূরে রাস্তায় তার ছেলেকে মারধর করে ও পরে ধরে নিয়ে যায়। ঘটনাটি দেখেন পাশের বাসার এক ভাড়াটিয়া নারী। যা তারা পরে জানতে পারেন।

পরে ওই দিন অনেক খোঁজ করেও তারা আসিফের সন্ধান পাননি। ১১ অক্টোবর রাতে আশুলিয়া থানায় নিখোঁজ ডায়েরি করেন। আজ সকালে তার বাড়ির পাশের একটি গলিতে ছেলে আসিফের লাশ পড়ে থাকতে দেখে স্থানীয়রা।

তিনি অভিযোগ করেন, এক মাস আগে ছেলে আসিফ পাশের বাসার রফিকুল নামে মুদি দোকানির ছেলের সাথে খেলতে যায়। সেখানে দুই শিশু গন্ডগোল করলে ক্ষোভ থেকে যায় রফিকুলের। এরই জেরে রফিকুল তার ছেলেকে অপহরণ করে হত্যা করেছে বলে অভিযোগ তার। এছাড়া থানায় জিডি করলেও পুলিশ তার ছেলেকে খুঁজতে কোন তৎপরতা দেখায় বলেও অভিযোগ করেন তিনি।

আশুলিয়া থানার পরিদশর্ক (তদন্ত) জিয়াউর রহমান জিয়া জানান, নিহতের মরদেহ ময়নাতদন্তের জন্য রাজধানীর সোহরাওয়ার্দী মেডিকেল কলেজ হাসপাতাল মর্গে প্রেরণ করা হয়েছে। প্রাথমিক ভাবে ওই শিশুকে শ^াসরোধ করে হত্যার পর লাশ তার বাড়ির পাশে ফেলে রাখা হয়েছে বলে ধারণা করা হচ্ছে। এঘটনায় পরিবারের অভিযোগের ভিত্তিতে প্রতিবেশী রফিকুল নামে একজনকে জিজ্ঞাসাবাদের জন্য আটক করা হয়েছে। থানায় একটি মামলা দায়েরের প্রস্তুতি চলছে।

তবে পুলিশ ব্যবস্থা নেয়নি নিহতের পরিবারের এমন অভিযোগের উত্তরে তিনি জানান, নিখোঁজের পর এলাকায় তার পরিবার মাইকিং করেছে। এছাড়া পুলিশ সার্বক্ষণিক খোঁজখবরও রেখেছিল।

সংবাদ সম্পর্কে আপনার মতামত দিন
তুমি এটাও পছন্দ করতে পারো
error: Content is protected !!
%d bloggers like this: