একটু হলেই ঘটে যেত ভয়াবহ রেল দুর্ঘটনা!

একটু হলেই ঘটে যেত ভয়াবহ রেল দুর্ঘটনা। কারা যেন খুলে রেখেছিল রেল লাইন। তারা নিজেদের পরিচয় দেয় পুলিশের লোক বলে। পরে স্থানীয়দের তৎপরতায় বিষয়টি জানানো হয় রেল কর্তৃপক্ষকে। এভাবেই বেঁচে যায় এক ট্রেন যাত্রীর প্রাণ। রোববার রাতে গাইবান্ধার সাদুল্লাপুর উপজেলার নলডাঙ্গা রেল স্টেশনের ক্রসিংয়ে এ ঘটনা ঘটে।

রেলওয়ে কর্তৃপক্ষ বলছে, রেলওয়ের ও সাধারণ মানুষের ক্ষতির উদ্দেশ্যে এমনটি করা হচ্ছিল বলে ধারণা করা হচ্ছে।

নলডাঙ্গা রেলস্টেশন সূত্র ও প্রত্যক্ষদর্শীরা জানায়, রোববার রাত ৯টার দিকে ১০ থেকে ১৫ জনের একটি দল নলডাঙ্গা রেলস্টেশন ক্রসিং বডির আপ পয়েন্টে এক নম্বর লাইনের নাট-বোল্ট খুলতে থাকে। এ সময় আশপাশের লোকজন দেখতে পেয়ে তাদের কাছে এ বিষয়ে জানতে চায়। তখন তারা নিজেদের পুলিশের লোক বলে পরিচয় দেয় এবং স্থানীয়দের ভয় দেখিয়ে তাড়িয়ে দেয়।

স্থানীয় বাসিন্দা বাবলু মিয়া জানান, ওই ব্যক্তিদের কথার্বাতায় সন্দেহ হলে নলডাঙ্গা রেল স্টেশনের দায়িত্বরত কর্মচারী (কিম্যান) রফিকুল ইসলামকে তাৎক্ষণকিভাবে বিষয়টি জানানো হয়। এ সময় দুর্বৃত্তরা কৌশলে ঘটনাস্থল থেকে পালিয়ে যায়।

কিম্যান রফিকুল ইসলাম ঘটনার সত্যতা নিশ্চিত করে বলেন, খবর পাওয়ার সঙ্গে সঙ্গে আমি ঘটনাস্থলে গিয়ে দেখি রেললাইনের প্রায় ১৫ থেকে ২০টি নাট-বোল্ট অনেকটা খুলে আলগা করে রাখা হয়েছে। বিষয়টি রাতেই কর্তৃপক্ষকে জানানো হয়। পরে অনুমতি নিয়ে রেল লাইনটি সংস্কার করা হয়।

সোমবার বিকেলে বাংলাদেশ রেলওয়ের বামনডাঙ্গা কার্যালয়ের উপসহকারি প্রকৌশলী (পথ) আফজাল হোসেন জানান, ওই অবস্থায় কোনো ট্রেন আসলে মারাত্মক দুর্ঘটনার আশঙ্কা ছিল। তবে এখন সব ট্রেন স্বাভাবিকভাবে চলাচল করতে পারবে। বড় ধরনের নাশকতা ঘটাতেই এমন করা হয়েছে বলে ধারণা করা হচ্ছে।

সংবাদ সম্পর্কে আপনার মতামত দিন
তুমি এটাও পছন্দ করতে পারো
error: Content is protected !!