গিনেস রেকর্ডের অপেক্ষায় সাভারের ‘রানী’

সাভার প্রতিনিধি

পৃথিবীর সবচেয়ে ছোট গরু হিসেবে আলোচিত হওয়ার পর সাভারের ‘রানি’ নামে গরুর কর্তৃপক্ষ ‘শিকড় এগ্রো লিমিটেড’-এর সঙ্গে যোগাযোগ করেছেন গিনেস বুকের কর্মকর্তারা। তারা জানিয়েছেন, গিনেস বুকে নাম লেখাতে সবরকম পরীক্ষা নিরীক্ষা শেষ হতে মাত্র মাস খানেক সময় লাগতে পারে।

সম্প্রতি এসব তথ্য জানিয়েছেন শিকড় এগ্রো লিমিটেডের ব্যবস্থাপক তানভীর হাসান।

গত জুলাই মাসে হঠাৎ করেই আলোচনায় আসে সাভারের একটি গরুর নাম। ‘রানি’ নামের ওই গরুই পৃথিবীর সবচেয়ে ছোট বলে দাবি করে কর্তৃপক্ষ।

পরে খোঁজ নিয়ে জানা যায়, বিশ্বের সবচেয়ে ছোট গরুর রেকর্ড ছিল ভারতের কেরালা রাজ্যের ৪ বছর বয়সী লাল রঙের মানিকিয়াম নামের এক গরু। তবে সেটাকে পেছনে ফেলে দিয়েছে বাংলাদেশের আশুলিয়ার চারিগ্রামের রানি। মাত্র ২০ ইঞ্চি উচ্চতার ২ বছর বয়সী ‘বক্সার ভূট্টি’ জাতের এই গরুর ওজন মাত্র ২৬ কেজি।

তানভীর হাসান বলেন, বছর দুয়েক আগে কোনো এক মাধ্যমে খবর পেয়ে নওগাঁর এক খামারির কাছ থেকে গরুটি কেনা হয়। সেটিকে দিনে দুইবার খাবার দিতে হয়। সাধারণ গরুর তুলনায় এর খাবার লাগে অনেকটা কম। ইন্টারনেট ঘেঁটে জানতে পারি এটিই পৃথিবীর মধ্যে সবচেয়ে ছোট গরু। একে বিশ্ব রেকর্ডে জায়গা করে দিতে গত ২ জুলাই গিনেস বুক অব ওয়ার্ল্ড রেকর্ডস কর্তৃপক্ষের কাছে আবেদন করা হয়। ওই আবেদনের পর গিনেস বুক কর্তৃপক্ষ একটি রিপ্লাইও দিয়েছে। গিনেস কর্তৃপক্ষ জানিয়েছে, তাদের নিজস্ব কিছু প্রক্রিয়া রয়েছে। ওই প্রক্রিয়া শেষ করে তারা আগামী ৯০ দিনের মধ্যে সিদ্ধান্ত জানাবে। সব কিছু ঠিক থাকলে এই গরু বিশ্বের সবচেয়ে ছোট গরুর অফিসিয়াল তকমা পাবে।

তিনি বলেন, জুলাইয়ে রানি ব্যাপক আলোচিত হওয়ার পর দেশ-বিদেশের গণমাধ্যমে আসে এর খবর। পরে গিনেস বুক কর্তৃপক্ষ আমাদের কাছে এর ওজন, শারীরিক অবস্থার রিপোর্টসহ বেশ কিছু তথ্য চেয়ে মেইল করে। আমরা সেগুলোর জবাব দিয়েছি। তারা জানিয়েছে, আগামী মাসের মধ্যেই হয়তো ফলাফল জানিয়ে দেওয়া হবে।

সংবাদ সম্পর্কে আপনার মতামত দিন
তুমি এটাও পছন্দ করতে পারো
error: Content is protected !!