নাফ নদীতে রোহিঙ্গা নারী-শিশুর লাশ উদ্ধার

নিজস্ব প্রতিবেদক

কক্সবাজারের টেকনাফ উপজেলার নাফ নদীতে ভাসমান অবস্থায় এক মেয়ে শিশু এবং এক নারীর লাশ উদ্ধার করেছে পুলিশ। এ নিয়ে গত তিনদিনে একই পরিবারের চারজনসহ মোট ছয়জনের লাশ উদ্ধার করা হলো।

টেকনাফ থানার ওসি মো. হাফিজুর রহমান জানান, সোমবার (১৪ জুন) দুপুর ২টায় নাফ নদীর টেকনাফ উপজেলার হ্নীলা ইউনিয়নের রঙ্গিখালী পয়েন্ট থেকে লাশ দুটি উদ্ধার করা হয়। নিহতরা মিয়ানমারের রোহিঙ্গা বলে জানালেও পরিচয় নিশ্চিত করতে পারেননি ওসি।

গত শনিবার (১২ জুন) দুপুরে নাফ নদীর টেকনাফের হোয়াইক্যং ইউনিয়নের খারাংখালী পয়েন্ট থেকে মা ও দুই মেয়ে শিশুর লাশ উদ্ধার করা হয়। পরদিন সকালে হ্নীলা ইউনিয়নের ফুলেরডেইল পয়েন্ট থেকে এক মেয়ে শিশুর লাশ উদ্ধার করা হয়। তারা সকালে বাংলাদেশে আশ্রয় নেওয়া রোহিঙ্গা।

ওসি হাফিজুর বলেন, সোমবার দুপুরে নাফ নদীর রঙ্গিখালী পয়েন্টে দুটি লাশ ভাসতে দেখে স্থানীয়রা পুলিশে খবর দেয়। পরে পুলিশ ঘটনাস্থলে পৌঁছে লাশ দুটি উদ্ধার করে। শিশুর বয়স আনুমানিক ৮ থেকে ১০ বছর এবং নারীর ৩০ বছর। তাদের পরণের পোশাক দেখে ধারণা করা হচ্ছে, তারা রোহিঙ্গা নাগরিক।

ওসি আরও বলেন, তারা কীভাবে মারা গেছে, তা এখনো নিশ্চিত হওয়া যায়নি। ধারণা করা হচ্ছে, নাফ নদী পারাপার করতে গিয়ে বিরূপ আবহাওয়ার কারণে নৌকা ডুবিতে তাদের মৃত্যু হয়েছে। বাংলাদেশে আশ্রয় নেওয়া রোহিঙ্গাদের আত্মীয়-স্বজনদের অনেকে মিয়ানমারে বাস করায় কেউ কেউ এপার-ওপারে যাতায়ত করে থাকে।

হাফিজুর জানান, গত শনিবার (১২ জুন) মা ও শিশুসহ একই পরিবারের তিনজনের লাশ উদ্ধার করা হয়। পরদিন উদ্ধার করা হয় একই পরিবারে আরেক মেয়ে শিশুর লাশ। উদ্ধার হওয়া এ সকল রোহিঙ্গারা উখিয়ার পালংখালী ইউনিয়নের বালুখালী ১১নং রোহিঙ্গা ক্যাম্পের বাসিন্দা।

উদ্ধার হওয়া লাশ দুটির ময়নাতদন্তের জন্য কক্সবাজার সদর হাসপাতালের মর্গে পাঠানো হয়েছে বলে জানান ওসি।

সংবাদ সম্পর্কে আপনার মতামত দিন
তুমি এটাও পছন্দ করতে পারো
error: Content is protected !!