পরিবহনে চাদাঁবাজির মামলায় যুবলীগ নেতা গ্রেফতার

উপজেলা প্রতিবেদক

সাভারের আশুলিয়ায় এক পরিবহন মালিকের চাদাবাঁজি ও মারধরের মামলায় ওয়ার্ড যুবলীগের নেতা উজ্জল হোসেনকে (৩৯) গ্রেফতার করেছে পুলিশ।

রোববার (৩০ মে) দুপুরে গ্রেফতার উজ্জল হোসেনকে ঢাকার মূখ্য আদালতে পাঠিয়েছে পুলিশ।

এরআগে, শনিবার (২৯ মে) রাতে ছয় জনের নাম উল্ল্যেখ করে চাদাবাঁজি মামলা করেন জিএম খসরুজ্জামান মিন্টু। পরে গভীর রাতে আশুলিয়া থেকে তাকে গ্রেফতার করা হয়।

গ্রেফতার উজ্জল হোসেন আশুলিয়ার পাথালিয়া ইউনিয়ন যুবলীগের ২ নম্বর ওয়ার্ডের সাংগঠনিক সম্পাদক। তিনি পাথালিয়ার টাকশুর গ্রামের মৃত মনু মিয়ার ছেলে। তিনি মামলার ১ নং আসামি।

মামলায় বাকি আসামিরা হলো- মো: রানা (৩০), মো: তুহিন (২৫), স্বপন চিশতী (৪৫), তারেক (৪২) ও চান মিয়া (৩০)।

মামলার এজাহার সূত্রে জানা গেছে, ভুক্তভোগী মিন্টু ওয়েলকাম পরিবহনের পরিচালক। তার ৬টি বাস নবীনগরের সড়কে চলাচল করে। উজ্জল ও রানা তার বাসের দেখা শোনার দায়িত্ব নেওয়ার জন্য দীর্ঘদিন যাবৎ শত্রুতা করে আসচ্ছে। গত ২৯ মে সকালে মিন্টু মোটরসাইকেল যোগে নবীনগর গেলে উজ্জলসহ আরও কয়েকজন তার গাড়ি থামিয়ে এই সড়কে পরিবহন চলাতে নিষেধ করে। গাড়ি এই সড়কে চালাতে চাইলে তাদের দায়িত্বে দিতে হবে। বিষয়টি নিয়ে মিন্টিু প্রতিবাদ করলে তাকে বেধরক মারধর করে এবং তার সাথে থাকা টাকা লুটপাট করে। পরে মিন্টুর ডাক-চিৎকারে আশাপাশের লোকজন জোড় হলে তারা চলে যায়।
এ বিষয়ে মামলার বাদি জিএম মিন্টু বলেন, আমার নবীনগর সড়কে গাড়ি চালাতে হলে তাদের চাদাঁ দিতে হবে। তা নাহলে আমার গাড়ি চালাতে দিবে না। এছাড়া তারা আমাকে নবীনগরই থাকতে দিবে না। আমি কোনা উপায় না পেয়ে থানার আশ্রয় নিয়েছি।

বিষয়টি নিয়ে আশুলিয়া থানার উপ-পরিদর্শক (এসআই) হারুন-অর-রশিদ বলেন, মামলার ভিত্তিতে একজনকে আমরা গ্রেফতার করেছি। বাকি আসামিদের গ্রেফতারের চেষ্ট চলছে। গ্রেফতার উজ্জল হোসেনকে আদালতে পাঠানো প্রক্রিয়া চলছে।

সংবাদ সম্পর্কে আপনার মতামত দিন
তুমি এটাও পছন্দ করতে পারো
error: Content is protected !!