পাইপে আটকে পড়া বিড়াল উদ্ধার করে প্রশংসিত কলেজছাত্রী

উপজেলা প্রতিবেদক

রাস্তার বিড়াল ঘরে এসে জন্ম দিয়েছিলো ৩টি বাচ্চা। সেই বাচ্চারা হামাগুড়ি থেকে হাঁটতে শিখেছে ঘরের ভেতরেই। তাদেরকে নিয়েই দিন যায় কলেজছাত্রী সানজিদা জান্নাতের।

হঠাৎই এদের মধ্যে থেকে একটি বিড়ালকে খুঁজে পাওয়া যাচ্ছিলো না। খুঁজতে খুঁজতে বিড়ালটির আর্তনাদ শোনা যায় বাথরুমের প্যানের পাইপের ভেতরে। সেই বিড়ালের চেঁচানো কান্নায় হতবিহ্বল হয়ে পড়েন তার বাসার সবাই। পরে প্রায় ১ ঘণ্টা চেষ্টার পর পাইপের প্রায় ২ফিট নিচ থেকে উদ্ধার করা হয়েছে বাচ্চা বিড়ালটিকে।

শুক্রবার (২৮ মে) সন্ধ্যার দিকে সাভার পৌরসভার ভাটপাড়া এলাকায় ঘটে এ ঘটনা।

সন্ধ্যার দিকে সাভারের স্থানীয় কয়েকটি গ্রুপে এ নিয়ে পোস্ট করা হলে ব্যাপক বাহবা পেয়েছেন তিনি।

জানতে চাইলে কলেজছাত্রী সানজিদা জান্নাত বলেন, মাগরিবের আজানের একটু আগেও বিড়ালটি আমার বিছানার পাশ দিয়ে চলাচল করছিলো। কিন্তু হঠাৎই এটা নিখোঁজ হয়ে যায়। পরে ঘরময় খুঁজেও বিড়ালটি পাচ্ছিলাম না। সন্ধ্যার দিকে মুখ ধুতে বাথরুমে ঢুকে বিড়াল ডাকার শব্দ পাই। পরে খুঁজাখুঁজি করে দেখি বাথরুমের প্যানের ভেতরে প্রায় দুই ফুট নিচে পড়ে গেছে বিড়ালটি।

‘বিড়ালের চেচানো শুনে একপর্যায়ে আমি কান্না করে দেই। পরে এটিকে তুলতে আশপাশের রুমের সবাইকে ডাক দেই। কিন্তু কোনভাবেই সেটিকে কেউ তুলতে পারছিলো না। বাশের আঙটা বানিয়ে, পাইপ দিয়ে বিভিন্নভাবে চেষ্টা করেও সেটিকে তুলতে পারছিলাম না। পরে একটি বোতল কেটে কাপের মতো বানিয়ে প্যানের ভেতর ঢুকিয়ে সেটাকে কৌশলে তুলে নিয়ে আসি।’

তিনি বলেন, ‘উপরে তুলার পর বাচ্চাটির অবস্থা খুবই খারাপ ছিলো। মুমুর্ষু প্রায় অবস্থা থেকে সেটাকে ধুয়ে এনে হেয়ার ড্রায়ার দিয়ে বাতাস করার পর উঠে আবার হাঁটতে শুরু করে।’

এদিকে বিড়াল উদ্ধারের ঘটনায় প্রশংসিত হয়েছেন কলেজছাত্রী সানজিদা জান্নাত।

ফেসবুকে কমেন্টসে অনেকে বলেছেন, ‘দয়াপরবশতাই মানবতার সেরা রূপ। যা এখানে প্রাণিটির প্রতি এই কলেজছাত্রী দেখিয়েছেন।’

সংবাদ সম্পর্কে আপনার মতামত দিন
তুমি এটাও পছন্দ করতে পারো
error: Content is protected !!