করোনা ভাইরাস
ভাইরাসের শহরে আটকে পড়েছে ৫০০ বাংলাদেশি শিক্ষার্থী

আন্তর্জাতিক ডেস্ক

করোনা ভাইরাসের সংক্রমণ ছড়িয়ে পড়া রোধে চীন সরকার প্রাণঘাতী ভাইরাসটির উৎপত্তিস্থল উহানসহ তিনটি নগরীকে অবরুদ্ধ ঘোষণা করেছে। এই নগরীগুলোতে প্রবেশ ও নগরী থেকে বাইরে যাতায়াতে নিষেধাজ্ঞা আরোপ করা হয়েছে। বন্ধ করে দেওয়া হয়েছে যান চলাচল।

এতে উহানে আটকে পড়েছেন কমপক্ষে ৫০০ জন বাংলাদেশি শিক্ষার্থী। ভাইরাসে আক্রান্ত হয়ে এরই মধ্যে ৪১ জনের মৃত্যু ঘটেছে দেশটিতে। ক্রমেই মহামারীর আকার ধারণ করছে `করোনাভাইরাস`।

উহান নগরীতে আটকে পড়া বাংলাদেশি শিক্ষার্থীরা ভাইরাসে আক্রান্ত না হলেও ঐ নগরী ছেড়ে যেতে পারছেন না সরকারী নিষেধাজ্ঞার কারণে। ফলে তারা শঙ্কার মধ্যে আতংকে দিন কাটাচ্ছেন।

এদিকে অন্য দেশের দূতাবাসগুলো নিজ নিজ দেশের ছাত্রদের সঙ্গে যোগাযোগ করলেও বাংলাদেশ দূতাবাস থেকে কেউ খোঁজ-খবর নেয়নি বলেও অভিযোগ করেছেন বাংলাদেশি শিক্ষার্থীরা।

উহানে আটকে পড়া শিক্ষার্থীদের একজন আসিফ আহমেদ সৌরভ ফেসবুকে মানবিক আবেদন জানিয়ে লিখেন, `আমি বাংলাদেশের সরকার, পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয় ও চীনে বাংলাদেশ দূতাবাসের দৃষ্টি আকর্ষণ করছি। আশা করছি, বাংলাদেশ সরকার অবরুদ্ধ উহানে করোনা ভাইরাস আতঙ্ক নিয়ে আটকে থাকা সকল বাংলাদেশী শিক্ষার্থী ও নাগরিককে উদ্ধার করার জন্য জরুরী ভিত্তিতে ত্বরিৎ কার্যকর পদক্ষেপ গ্রহণ করবেন।`

তিনি আরও লিখেন, `সম্প্রতি চায়নাতে ছড়িয়ে পড়া করোনা ভাইরাসে আক্রান্ত শহর উহানে আমি বাস করছি। এখানে আমরা প্রায় ৫০০ জনেরও অধিক বাংলাদেশী উহানের বিভিন্ন বিশ্ববিদ্যালয়ে ব্যাচেলর, মাস্টার্স ও পিএইচডিও প্রোগ্রামে অধ্যায়নরত। উহান থেকে বহির্গামী সব বাস-ট্রেন এবং বিমান চলাচল বন্ধ করে দেওয়া হয়েছে। করোনাভাইরাসে আক্রান্ত হয়ে এ পর্যন্ত অন্তত ২৫ জন মারা গেছে এবং ৬০০-এরও বেশি মানুষ এতে আক্রান্ত হয়েছে। আমরা চাইলেও এখন নিজ দেশে ফিরে যেতে পারছি না।`

এরপরই সৌরভ অভিযোগ করেন, `বাংলাদেশ দূতাবাস থেকে আমাদের খোজ খবর নেওয়া হচ্ছে এমন নিউজ বাংলাদেশের মিডিয়াতে প্রচার করা হলেও এ খবর ভিত্তিহীন। আমাদের এখন পর্যন্ত কোনো প্রকার কোনো খোঁজ নেওয়া হয়নি। আমরা সবাই এক কঠিন মূহুর্ত পার করছি। আল্লাহ তা`লা যেন আমাদের সবাইকে এ বিপদ থেকে রক্ষা করেন।`

চীনে বাংলাদেশি দূতাবাসের ডেপুটি চিফ অব মিশন মাসুদুর রহমান জানান, ‘চীন সরকারের কিছু বিধি নিষেধ আছে। চাইলেই আমরা অনেক কিছু করতে পারি না। সব কিছুতে তাদের ওপর নির্ভরশীল। আমরা প্রতিনিয়ত দেশে আপডেট তথ্য পাঠাচ্ছি। এই মুহূর্তে বাংলাদেশি কাউকেই দেশে পাঠানোর কোনও সুযোগ নেই। কারণ চীন সব বিমানবন্দরও বন্ধ রেখেছে।

শিরোনামবিডি/বাবলু ইসলাম

সংবাদ সম্পর্কে আপনার মতামত দিন
তুমি এটাও পছন্দ করতে পারো
%d bloggers like this: