রক্তের সন্ধান দেবে ‘ব্লাডলাইন ২৪/৭’ অ্যাপ

আমাদের জরুরি প্রয়োজনে রক্তের দরকার হয়। ল্যান্ডফোনের দিনগুলিতে বিটিভিসহ বিভিন্ন প্রিন্ট ও ইলেকট্রনিক্স মিডিয়ায় মুমূর্ষ রোগীর জন্য রক্ত চেয়ে দেয়া হতো জরুরি বিজ্ঞাপন। সে সময় ব্লাডব্যাংক আর কিছু স্বেচ্ছাসেবী সংগঠনের উপরই নির্ভর করতে হতো। বর্তমানে সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমের কল্যাণে এখন রক্তদান ও রক্তের সন্ধান পাওয়া যায় সহজেই। তবে এতে সময়টা লেগে যায় অনেকক্ষণ।

জাতীয় কবি কাজী নজরুল ইসলাম বিশ্ববিদ্যালয়ের কম্পিউটার সায়েন্স এন্ড ইঞ্জিনিয়ারিং বিভাগের উদীয়মান তরুণ শিক্ষার্থী নাঈম মাহফুজ শাহীন তৈরি করেছেন রক্তের সন্ধান দিতে পারে এমন একটি মোবাইল অ্যাপ ব্লাডলাইন ২৪/৭।

ব্লাডলাইন ২৪/৭ নামের অ্যাপটি রোগীর পরিবারের দুশ্চিন্তা অনেকটা কমাতে পারে। অ্যাপটি ব্যবহার করে পাওয়া যাবে রক্তদাতার সন্ধান। এই অ্যাপের মাধ্যমে আপনি ডোনার হিসাবেও রেজিস্ট্রেশন করতে পারবেন, আবার মেম্বার হিসাবেও জয়েন করতে পারবেন। ডোনার হিসাবে রেজিস্ট্রেশন করলে আপনাকে যে কেউ রক্তের জন্য ফোন দিতে পারবে। মেম্বার হিসাবে জয়েন করলে আপনার মোবাইল নাম্বার হিডেন থাকবে। কেউ যদি মিস ইউজ করে নাম্বারের সেক্ষেত্রে এডমিনের মাধ্যমে ব্যবস্থা নেয়া যাবে। রক্তের দরকার হলে আপনি এখানে বিস্তারিত পোস্ট দিতে পারবেন। আপনি পোস্ট দেয়ার পর পরই ওই জেলার প্রয়োজনীয় রক্তের গ্রুপের ডোনারের কাছে নোটিফিকেশন চলে যাবে। আপনি পোস্ট ছাড়াও নির্দিষ্ট রক্তের গ্রুপের জন্য জেলা এবং ব্লাডগ্রুপ অনুযায়ি সার্চ করতে পারবেন।

সার্চ বোতামে চাপ দেয়ার পর একটি তালিকা দেখা যাবে, কারা কারা ওই গ্রুপের রক্তদাতা আছেন। রক্তগ্রহীতা থেকে রক্ত দিতে ইচ্ছুক কে, কতো দূরত্বে আছেন তাও জানা যাবে। এরপর নিবন্ধনকারীদের মধ্যে সবচেয়ে কাছে থাকা ব্যক্তিকে রিকোয়েস্ট বোতাম চেপে অনুরোধ জানানো যাবে রক্ত দেয়ার জন্য। অনুরোধ পাওয়ার পর রক্ত দেয়ার ইচ্ছে থাকলে দাতা ও গ্রহীতা যোগাযোগ করতে পারবেন। কারণ, তখন নিজেদের মুঠোফোন নম্বর দেখার সুযোগ পাওয়া যাবে অ্যাপে। রক্ত দেয়ার পর রক্তদাতা অ্যাপটিতে নিজেকে আন-অ্যাভেলেবল করে দিলে চার মাস পর্যন্ত কেউ অনুরোধ জানাতে পারবে না।

আপনার ফিডে দেশের কোথায় কোথায় রক্তের প্রয়োজন তা সহজেই জানতে পারবেন। আপনি সাহায্যও করতে পারবেন। কোন গ্রুপের রক্তদাতা কোন গ্রুপের রোগীকে রক্ত দিতে পারবেন তাও জানতে পারবেন। আপনার সর্বশেষ রক্তদানের তারিখটি দিয়ে আপনার রক্তদানের ট্র্যাক রেকর্ড রাখতে পারবেন। যারা রক্ত দিতে আগ্রহী তারা নিবন্ধন করে রক্ত দিতে পারবেন। ইতিমধ্যেই এই অ্যাপটি ১৭৪৪ জন ব্যবহার করে এবং রক্তদাতা হিসেবে অ্যাপটিতে সারা দেশের ৭৩৫ জন নিবন্ধন করেছেন।

কেন এই উদ্যোগ?

এমন প্রশ্নের জবাবে শাহীন বলেন, তথ্যপ্রযুক্তির যুগে সবকিছুরই ডিজিটাল প্ল্যাটফর্ম হচ্ছে। রক্ত দেয়া-নেয়ার বিষয়টা খুব সেনসেটিভ। যখন দরকার হয় তখন খুব অল্প সময়ের মধ্যে এটা যোগার করা খুব মুশকিল হয়ে যায়। তাই আমি রক্তের সন্ধানে এমন কিছু করতে চেয়েছিলাম, যাতে মানুষের হয়রান না হতে হয়। এই প্রয়াস থেকেই এমন একটি অ্যাপ ডেভেলপ করার চিন্তা আমার মাথায় আসে। মূলত এই চিন্তা থেকেই কাজে লেগে যাওয়া এবং কাজের ফলশ্রুতিতে এখন ব্লডলাইন ২৪/৭ একটি অ্যাপ আমি তৈরি করতে পেরেছি।

ভবিষ্যৎ পরিকল্পনা: আমি এ অ্যাপটির মাধ্যমে রক্তদাতা ও গ্রহীতার মধ্যে মূলত সংযোগ করে দিচ্ছি। এই অ্যাপটি নিয়ে আমি নিয়মিত কাজ করে যাচ্ছি। এ ছাড়া এই অ্যাপের ব্যবহারকারী যত বাড়বে তত বেশি রক্তদাতা ও গ্রহীতা বাড়বে। এ জন্য দেশের যারা নিজ ইচ্ছায় রক্ত দেন তারা যেন এই অ্যাপে যুক্ত হন সে আহ্বান জানাই। প্লে স্টোর থেকে বিনা মূল্যে নামানো যাবে ব্লাডলাইন ২৪/৭ অ্যাপটি।

বিশ্ববিদ্যালয়ের ভারপ্রাপ্ত রেজিস্টার কৃষিবিদ ড.হুমায়ুন কবীর জানান, অত্র বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষার্থী জনকল্যাণে এমন এ্যাপ আবিস্কারের ফলে একজন মুমূর্ষ রোগীর জন্য জরুরি রক্তের প্রয়োজন হলে তা সহজেই পাওয়া যাবে।

বিশ্ববিদ্যালয়ের ভিসি প্রফেসর ড.এইচ.এম মোস্তাফিজুর রহমান জানান, আমার বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষার্থী জনকল্যাণে এমন অ্যাপ আবিস্কারে গর্ব হচ্ছে।

সংবাদ সম্পর্কে আপনার মতামত দিন
তুমি এটাও পছন্দ করতে পারো
error: Content is protected !!