সাভারে বিপণিবিতানে ক্রেতা নেই, ব্যবসায়ীদের হতাশা

করোনা মহামারির মধ্যে এসেছে ঈদুল আজহা। যদিও এই ঈদে পশু কেনাবেচা, কোরবানির অনুসঙ্গই মুখ্য। এরপরও অন্যান্য বছর ঈদের আগে শপিংমল, মার্কেটে ক্রেতার ভিড় লেগে থাকতো। এ বছর মার্কেটে ক্রেতা নেই বললেই চলে। বিক্রি না হওয়ায় হতাশ ব্যবসায়ীরা।

সম্প্রতি সাভার, আশুলিয়া, ধামরাইয়ের বিভিন্ন মার্কেট ও পোশাকের শো-রুম ঘুরে এমন চিত্র দেখা গেছে। বড় মার্কেটের মতো প্রায় ক্রেতাশূন্য ফুটপাতের ভ্রাম্যমাণ দোকানও।

আবার করোনাভাইরাস সংক্রমণের ঝুঁকি নিয়ে কিছু সংখ্যক মানুষ কেনাকাটা করতে মার্কেটে এলেও তাদের সামাজিক দূরত্ব ও স্বাস্থ্যবিধি তেমন মানতে দেখা যায়নি।

সাভারের রাজ্জাক প্লাজায় গিয়ে দেখা যায়, মার্কেটের প্রবেশ গেটে জীবাণুনাশক ট্যানেল বসানো হয়েছে। কেউ কেউ এই ট্যানেলের ভেতর দিয়ে প্রবেশ করছেন। অনেকে ট্যানেলের ভেতর না ঢুকে পাশ দিয়ে যাচ্ছেন।

মার্কেটর ব্যবসায়ীরা বলছেন, মানুষের মধ্যে সচেতনতা নেই। এতে যারা মার্কেটে আসছেন, তারা যেমন নিজেদের ঝুঁকির মধ্যে ফেলছেন, তেমনি আশপাশের লোকদেরও।

মার্কেটে আসা সাদিয়া হোসাইন বলেন, ‘‘নতুন পোশাকের জন্য ছোট ভাই কান্না করছিল। তাই ওকে নিয়ে এসেছি। দুপুরের দিকে ভিড় বেশি থাকে, তাই সকালে এসেছি। ভিড় বাড়ার আগেই কেনাকাটা শেষ করে ফিরে যাবো।’’

ধামরাই থেকে সাভারে মার্কেটে আসা শরিফুল ইসলাম বলেন, বছরে দুই ঈদের আগে সাভারে কেনাকাটা করতে আসেন। এবার একটি পাঞ্জাবি কিনেছেন।

করোনা ঝুঁকির মধ্যেও মার্কেটে আসার বিষয়ে দুই ক্রেতাই বলেন, করোনাভাইরাসের কারণে একরকম ঘরবন্দি রয়েছেন তারা। নতুন পোশাক ছাড়া ঈদের আনন্দ থাকে না। তাই এসেছেন। তাছাড়া করোনার ভয়ে ঘরে বন্দি হয়ে থাকলে তো জীবন চলবে না।

সাভারের সিটি সেন্টারের দোকানি সাইফুল ইসলাম বলেন, অন্যবছর এই সময়ে ক্রেতার ভিড় লেগে থাকতো। তবে এবার কম। তাদের বিক্রিও কম।

এদিকে, সাভারের ফুটপাতের ভ্রাম্যমাণ দোকানে দেখা গেছে ক্রেতা তেমন নেই। সেখানে কয়েকজনের সঙ্গে কথা বললে তারা জানান, এ বছর করোনার কারণে অনেকে ঠিকমতো বেতন পাননি। অনেক কারখানাও বন্ধ। বহু পোশাাক শ্রমিকের চাকরি নেই। তারা কেনাকাটা করতে পারছেন না।

আশুলিয়ার পল্লিবিদ্যুৎ এলাকার ব্যবসায়ী আব্দুর রহিম বলেন, লটে মাল কিনে নিয়ে এসেছিলেন। প্যান্ট, শার্টসহ বেশকিছু আইটেম। কিন্তু ৫০ ভাগও বিক্রি হয়নি। সামনে হবে কিনা তাও বুঝতে পারছেন না।

‘‘পরিস্থিতি স্বাভাবিক না হলে হয়তো আর ব্যবসা করা যাবে না। ঈদের মৌসুমে এত কম বিক্রি আগে কখনো হয়নি।’’

সংবাদ সম্পর্কে আপনার মতামত দিন
তুমি এটাও পছন্দ করতে পারো
error: Content is protected !!
%d bloggers like this: