হলি আর্টিজান নিয়ে বলিউডে সিনেমা তৈরি না করতে আইনি নোটিশ

নিজস্ব প্রতিবেদক

বাংলাদেশের হলি আর্টিজান ট্রাজেডি নিয়ে ভারতের বলিউডে চলচ্চিত্র নির্মাণ না করতে সংশ্লিস্টদের প্রতি আইনি নোটিশ পাঠানো হয়েছে। ভারতীয় প্রযোজনা প্রতিষ্ঠান টি-সিরিজ, চলচ্চিত্র নির্মাতা ভূষণ কুমার হানসাল মেহেতাসহ সংশ্লিস্টদের এই নোটিশ দেওয়া হয়েছে।
হলি আর্টিজানে জঙ্গি হামলার ঘটনায় নিহত অবিন্তা কবিরের মা ‘অবিন্তা কবির ফাউন্ডেশন’ এর প্রতিষ্ঠাতা এবং সাধারণ সম্পাদক মিসেস রুবা আহমেদের পক্ষে ল’ ফার্ম লিগ্যাল কাউন্সিল থেকে ব্যারিস্টার মিতি সানজানা বৃহষ্পতিবার এ নোটিশ পাঠিয়েছেন। নোটিশে ওই ঘটনায় কোনো চলচ্চিত্র নির্মাণ না করতে অনুরোধ জানিয়ে বলা হয়েছে, নোটিশ পাওয়ার পরও চলচ্চিত্র নির্মাণ করা হলে সংশ্লিষ্টদের বিরুদ্ধে যথাযথ আইনী পদক্ষেপ গ্রহণ করা হবে।

নোটিশে বলা হয়, ২০১৬ সালের পহেলা জুলাই বাংলাদেশের হলি আর্টিজান রেস্তোরায় সংঘটিত মর্মান্তিক জঙ্গি হামলা হয়। ওই ঘটনায় অবিন্তা কবিরসহ ২৪ জন নিহত হয়। এ ঘটনা নিয়ে ভারতের বিখ্যাত চলচ্চিত্র নির্মাতা হানসাল মেহেতা সম্প্রতি একটি সিনেমা নির্মাণের ঘোষণা দিয়েছেন। এই চলচ্চিত্রটি ভারতের বিখ্যাত নির্মাতা ভূষণ কুমারের (প্রয়াত গুলশান কুমারের ছেলে) প্রযোজনা সংস্থা টি-সিরিজ থেকে প্রযোজনা করা হবে বলে জানা গেছে। এই সিনেমার কেন্দ্রীয় চরিত্রে অভিনয় করবেন প্রয়াত শশি কাপুরের দৌহিত্র জাহান কাপুর।

নোটিশে বলা হয়, মিসেস রুবা আহমেদের সন্তানের এই বেদনাদায়ক মৃত্যুতে তার পরিবারের সদস্যরা প্রচণ্ড মানসিক যন্ত্রণার মধ্যে দিনযাপন করছেন। হলি আর্টিজানকে কেন্দ্র করে এ ধরনের সিনেমা নির্মাণের মাধ্যমে সে সকল ঘটনা আবার জনগণের মাঝে প্রচার করলে, তা কেবল সেই দুর্ঘটনার করুণ এবং কষ্টদায়ক স্মৃতিগুলোকেই আবার জাগিয়ে তুলবে। যা অবিন্তার মা এবং তার পরিবার প্রতিনিয়ত ভুলে থাকার জন্য সংগ্রাম চালিয়ে যাচ্ছেন। এই পরিস্থিতিতে এ ধরনের চলচ্চিত্র নির্মাণ কোনভাবেই কাম্য নয়। তাছাড়াও এধরনের চলচ্চিত্র নির্মিত হলে তা বাংলাদেশকে বহির্বিশ্বে একটি সন্ত্রাসী, জঙ্গিবাদি, সাম্প্রদায়িক রাষ্ট্র হিসেবে চিত্রিত করবে যা প্রকৃত অর্থে সত্য নয়। এ ধরনের চলচ্চিত্র নির্মাণ করা হলে তা বহির্বিশ্বে বাংলাদেশের ভাবমূর্তি ও সুনাম নষ্ট করবে। যার নেতিবাচক প্রভাব গোটা বাংলাদেশের আর্থ সামাজিক, রাজনৈতিক পরিস্থিতিকে চরম ক্ষতির মুখে ঠেলে দেবে।

নোটিশে বলা হয়, এমনকি হলি আর্টিজান নিয়ে চলচ্চিত্র নির্মাণের ঘোষণা দেওয়ার আগে ভারতের এই প্রযোজনা সংস্থা, নির্দেশক/প্রযোজক আমাদের মক্কেলের কাছ থেকে কোনো ধরনের অনুমতি নেয়নি। এর আগেও বিখ্যাত নির্মাতা মহেশ ভাট এবং গুল পানাগ একই ধরনের উদ্যোগ নিয়েছিলেন। তারা মিসেস রুবা আহমেদের সঙ্গে যোগাযোগ করে হলি আর্টিজান এর কাহিনীভিত্তিক চলচ্চিত্র নির্মাণের প্রস্তাব দেয়। কিন্তু মিসেস রুবা আহমেদ সে সময় তার তীব্র আপত্তির কথা তাদের জানিয়ে দেন।

কেআরআর

সংবাদ সম্পর্কে আপনার মতামত দিন
তুমি এটাও পছন্দ করতে পারো
error: Content is protected !!