১৮ মাস শাস্তি কমলো উমর আকমলের

উমর আকমলের তিন বছরের নিষেধাজ্ঞা দেড় বছরে নামিয়ে এনেছে পাকিস্তান ক্রিকেট বোর্ড (পিসিবি)। ১৮ মাসের শাস্তি কমিয়েছে পিসিবি। দেশটির ক্রিকেট বোর্ড এক সংবাদ বিজ্ঞপ্তিতে বিষয়টি নিশ্চিত করেছে। সবকিছু ঠিকঠাক থাকলে ২০২১ সালের আগস্টে ক্রিকেট ফিরতে পারবেন উমর আকমল। ২০২০ সালের ফেব্রুয়ারি থেকে তার শাস্তি কার্যকর শুরু হয়েছে।

পাকিস্তান সুপার লিগে (পিএসএল) ম্যাচ পাতানোর প্রস্তাব পেয়েও তা যথাযথ কর্তৃপক্ষকে না জানানোয় গত এপ্রিলে উমর আকমলকে ৩৬ মাসের নিষেধাজ্ঞা দিয়েছে পাকিস্তান ক্রিকেট বোর্ড (পিসিবি)। এ রায়ের বিপক্ষে আপিল করে শাস্তি কমানোর অনুরোধ করেন উমর। গত ১৩ জুলাই তার ভবিষ‌্যৎ নির্ধারণের কথা থাকলেও পিসিবি তা পিছিয়ে দেয়। অবশেষ মঙ্গলবার পিসিবির শৃঙ্খলা কমিটি নতুন করে তার শাস্তি নির্ধারণ করে। ১৮ মাস শাস্তি কমিয়েছেন পিসিবির শৃঙ্খলা কমিটির চেয়ারম্যান বিচারপতি (অব.) ফজল-ই-মিরান চৌহান।

পিসিবির এইচপি সেন্টারে শাস্তি ঘোষণার সময় উপস্থিত ছিলেন উমর আকমল ও তার আইনজীবি। সিদ্ধান্তকে স্বাগত জানিয়েছেন তার আইনজীবি কিন্তু তারা আরও বেশি শাস্তি কমানোর প্রত‌্যাশা করেছিলেন।

দুর্নীতি দমন কোডের ২.৪.৪ এর আওতায় তাঁর বিরুদ্ধে দুটি চার্জ গঠন করেছিল পিসিবি। যেখানে বলা হয়েছিল, ‘পিসিবির নজরদারি ও সুরক্ষা বিভাগকে দুর্নীতিমূলক আচরণে সহায়তা না করা এবং প্রয়োজনীয় তথ‌্য দেরি করে দেয় উমর আকমল।’

পাকিস্তানের হয়ে ২২১ আন্তর্জাতিক ম্যাচ খেলা উমর আকমল এর আগে ফিটনেস ট্রেনারের সঙ্গে বাজে আচরণ করে নেতিবাচক খবরের শিরোনাম হন। ক্রিকেট থেকে সাময়িক নিষিদ্ধ হওয়ায় পাকিস্তান সুপার লিগেও (পিএসএল) খেলতে পারেননি। পাকিস্তানের হয়ে সবশেষ মাঠে নেমেছিলেন ২০১৯ সালের অক্টোবরে। শ্রীলঙ্কার বিপক্ষে টি-টোয়েন্টিতে খেলেছিলেন তিনি। ৩১-এ পা রাখা ক্রিকেটার সামনে নিজের ক্যারিয়ার গড়তে পারেন কিনা সেটাই দেখার।

প্রসঙ্গ, পরিবারের তিন ভাইয়ের মধ্য উমর আকমল ছোট। তিন ভাই খেলেছেন জাতীয় দলে। বড় ভাই কামরান আকমল দীর্ঘদিন পাকিস্তানের জার্সি গায়ে জড়িয়েছেন। মেজ ভাই আদনান আকমল ২১ টেস্ট খেলেছেন। তাদের চাচাতো ভাই বাবর আজম এখন পাকিস্তানের ব্যাটিং স্তম্ভ এবং ওয়ানডে ও টি-টোয়েন্টি দলের অধিনায়ক।

সংবাদ সম্পর্কে আপনার মতামত দিন
তুমি এটাও পছন্দ করতে পারো
error: Content is protected !!
%d bloggers like this: