২০ টাকা লিটার দুধ, তবুও ক্রেতা নেই

করোনা উদ্ভূত পরিস্থিতিতে বিপাকে পড়েছেন গরুর খামারিরা। ক্রেতা কমে যাওয়ায় দুধ বিক্রি প্রায় বন্ধ হয়ে গেছে। চলতি দরের চেয়ে প্রায় চার গুন দাম কমিয়েও ক্রেতা পাচ্ছেন না তারা। এদিকে অনেক বাজার বন্ধ হয়ে যাওয়ায় গো-খাদ্যের দামও বৃদ্ধি পেয়েছে।

ঢাকার ধামরাই ও সাভারের খামারিদের সঙ্গে কথা বলে এসব তথ্য জানা গেছে।

খামারিরা জানান, করোনাভাইরাসের সংক্রমণ রোধে দেশের অনেক হাট-বাজার, দোকান নির্দিষ্ট সময় বন্ধ রাখার নির্দেশ দিয়েছে সরকার। এ কারণে নিয়মিত দুধের বাজার বসতে পারছে না। যেখানে আগে দুধের দাম পাওয়া যেতো ৬০-৭০ টাকা লিটার। সেখানে ২০ টাকা লিটারেও দুধ বিক্রি করা যাচ্ছে না। খামারিদের দুধের মূল ক্রেতা স্থানীয় হোটেল, রেস্টুরেন্ট এবং মিস্টির দোকান। বন্ধের কারণে তারা দোকান খুলতে পারছে না। ফলে দুধ খুচরা বিক্রি করতে হচ্ছে। কিন্তু তাতেও ক্রেতা শূন্য দুধের বাজার।

এ অবস্থায় বড় ধরনের ক্ষতির আশঙ্কা করছেন সংশ্লিষ্টরা। দুধের চাহিদা বাড়াতে মিষ্টির দোকানগুলো খুলে দেয়ার আহ্বান জানিয়েছেন তারা। খামারিরা জানান, মানুষের খাদ্যের দাম নিয়ন্ত্রণে রাখা গেলেও বেড়েছে গো-খাদ্যের দাম। আগে যেখানে এ বস্তা ভুসির দাম ছিলো ১২০০টাকা। তা এখন ১৬০০ টাকা হয়েছে।

ঢাকার ধামরাইয়ের আদিয়া ডেইরি ফার্মের মালিক মো. আবদুল আহাদ বাবু বলেন, খামারের ২০টি গরুর পেছনে প্রতিদিন ২১০০ টাকা খরচ হয়। কিন্তু ৫০০ টাকাও আয় হচ্ছে না। গত কয়েকদিন আগে ছুটি ঘোষণার পর থেকেই সমস্যার মধ্যে পড়ে গেছি। এতো দুধ করবো কী? দুধ নষ্ট হওয়ার ভয়ে জ্বাল দিয়ে ছানা করে রাখছি। কিন্তু এই গরমে ছানাও বেশিদিন থাকে না।

তিনি বলেন, শুধু দুধ বিক্রি বন্ধ তা নয়, হাট-বাজারে মানুষ কম বলে গরুও বিক্রি করতে পারছি না। এমন অবস্থা চলতে থাকলে খামারের খরচ জোগানো ও শ্রমিকদের মজুরি দেওয়া মুশকিল হয়ে যাবে। খামার বন্ধ করে দেওয়া ছাড়া উপায় থাকবে না।

সাভারের খামারি সাইফুল ইসলাম বলেন, আমার ৩টি গরু আছে। ভ্যান চালিয়ে সংসার চালাই। ভ্যান চালাতে বাইরে যেতে পারি না বলে গরুর খাবার কিনতে পারি না। নিজেরই খাবার নাই, গরুকে খাওয়াব কী?

এ বিষয়ে ধামরাই উপজেলা প্রাণী সম্পদ কর্মকর্তা ডা. সাইদুর রহমান বলেন, খামারিদের কথা ভেবেই সরকারি ত্রাণের সঙ্গে বা বেসরকারি প্রতিষ্ঠানগুলোর যেসব সহযোগিতা দেয়া হচ্ছে তার সঙ্গে দুগ্ধজাত পণ্য দেওয়ার প্রস্তাব দিয়েছি আমরা। বিষয়টি নীতি-নির্ধারণী পর্যায়ে জানানো হয়েছে। এছাড়া কৃষকদের কোনো সহায়তা দেওয়া যায় কিনা এ বিষয়টিও প্রক্রিয়াধীন রয়েছে বলে জানান তিনি।

সংবাদ সম্পর্কে আপনার মতামত দিন
তুমি এটাও পছন্দ করতে পারো
error: Content is protected !!
%d bloggers like this: