২১শে ফেব্রুয়ারি দেখছে ‘ভাষা মতিনের’ চোখ

নিজস্ব প্রতিবেদক, ধামরাই

ভাষার দাবিতে আন্দোলন করে যার একাংশই হয়ে গিয়েছিল ‘ভাষা মতিন’। মাতৃভাষায় কথা বলার অধিকার প্রতিষ্ঠায় ১৯৪৮ সালে যে আন্দোলন শুরু হয় সেই আন্দোলনে যুক্ত হয়ে নেতৃত্ব দিয়ে সিরাজগঞ্জের ‘ছাত্র মতিন’কে সারা পূর্ববাংলার মানুষের কাছে পরিচিত করে তোলে ‘ভাষা মতিন’ নামে। ২০১৪ সালে দৃশ্যত মৃত্যু ঘটে মতিনের। তবে তার দুই চোখ আজো দেখে যাচ্ছে বাংলার আকাশ। দেখছে ২১শে ফেব্রুয়ারি। মৃত্যুবরণ করেও পৃথিবীর আলো, রঙ, রুপ মূর্ত ভাষা মতিনের চোখে!

মৃত্যুর পর আবদুল মতিনের দান করে যাওয়া দুটি চোখের কর্নিয়ার মধ্যে একটি স্থাপন করা হয়েছে ঢাকার ধামরাইয়ের সুয়াপুর ইউনিয়নের রেশমা নাসরিনের চোখে। হঠাৎ অন্ধকার হয়ে যাওয়া যে চোখে তিনি ২৪টি বছর কিছুই দেখতে পাননি সেই চোখে আলো ফিরিয়ে দেয় আবদুল মতিনের চোখের কর্নিয়া।

রেশমা জানালেন, আট বছর বয়সের সময় তার বাম চোখে চুলকানি হয়েছিল। সেটা বেড়ে গিয়ে চোখ থেকে পানি পড়া শুরু হয়। চিকিৎসা করেও কোন কূল কীনারা হচ্ছিল না তাতে। একসময় চোখটিতে দৃষ্টিশক্তি কমে আসতে থাকে। ২০১৩ সালে ধামরাই সরকারি ডিগ্রি কলেজ থেকে স্নাতক শেষ করে রেশমা মাস্টার্সের জন্য ভর্তি হন মানিকগঞ্জের দেবেন্দ্র কলেজে। এ বছরেই তার বাম চোখের জ্যোতি পুরোপুরি নিভে যায়।

পরে ধামরাই উপজেলা হাসপাতালের চিকিৎসক এনামুল কবির রেশমাকে চক্ষু বিশেষজ্ঞের কাছে যাওয়ার পরামর্শ দেন। এরপর ঢাকার সেন্ট্রাল চক্ষু হাসপাতালের চিকিৎসক দীর্ঘ দিন চিকিৎসা প্রদানের পর তার চোখে সংক্রমণ য়েছে বলে জানিয়ে যত দ্রুত সম্ভব কর্নিয়া পাল্টানোর কথা বলেন।

কর্নিয়া বদলাতে ২০১৩ সালের দিকে সন্ধানীতে আবেদন করেন রেশমা। সেসময় কর্নিয়া বিশেষজ্ঞ শীষ রহমানের অধীনে চিকিৎসা চলছিল তার।

এরইমধ্যে ২০১৪ সালের ৮ অক্টোবর মারা যান ভাষা সৈনিক আবদুল মতিন। জীবিত থাকতে তিনি নিজের দুই কর্নিয়া দান করে যান। সন্ধানী সেই খবর পেয়ে রেশমাকে যোগাযোগ করতে বলে।

পরে ৯ অক্টোবর বিকেল চারটার দিকে পরীক্ষা নিরীক্ষা শেষে মহান ব্যক্তি ভাষা সৈনিক আবদুল মতিনের চোখের কর্নিয়া রেশমার চোখে স্থানান্তর করা হয়। এতে তার খরচ হয় মাত্র ১৫ হাজার টাকা। যদিও ঐ সময় কর্নিয়া কিনতে দুই লাখ টাকা লাগবে বলে জানিয়েছিলেন চিকিৎসকরা।

ধামরাইয়ের বীর মুক্তিযোদ্ধার কন্যা রেশমা পেশায় সুয়াপুর কমিউনিটি ক্লিনিকের স্বাস্থ্যকর্মী। ভাষা মতিনের দেয়া চোখের আলোতে মানবসেবায় ব্রত হয়েছেন তিনি। বাড়ি বাড়ি গিয়ে মানুষের সেবা করার সঙ্গে সঙ্গে মানুষকে উদ্বুদ্ধ করেন শরীরের গুরুত্বপূর্ণ অঙ্গদান করায় জন্য। এভাবে মানুষের উপকার করে আবদুল মতিনের ঋণ কিছুটা শোধ করতে চান তিনি।

জানালেন, কর্ণিয়া সংযোজনের পর চোখ খুলে একমাত্র মেয়ে ফেরদৌসী মিমকে দেখতে পেয়েছিলেন রেশমা। এরপর গত ৬ বছর ধরে নিজের স্বাভাবিক কাজকর্ম চালিয়ে যাচ্ছেন তিনি।

রেশমা জানান, কর্নিয়া স্থানান্তরিত ওই চোখ দিয়ে সত্তর শতাংশ দেখতে পান তিনি। আর ১০ ফুট দূরত্ব পর্যন্ত যে কোন ব্যক্তিকে অনায়াসে চিনতে পারেন। শুধু বই পড়তে গেলে চশমা ব্যবহার করতে হয়।

তিনি বলেন, একজন ভাষা সৈনিকের দেয়া চোখে আজ পৃথিবীর আলো দেখতে পেয়ে তিনি গর্বিত। এমন এক মহান ব্যক্তির স্মৃতি ধারণ করতে পেরে তার জীবন সার্থক।

সংবাদ সম্পর্কে আপনার মতামত দিন
তুমি এটাও পছন্দ করতে পারো
error: Content is protected !!
%d bloggers like this: