৩ বছর পর ঢাকা জেলা উত্তর ছাত্রলীগের পূর্নাঙ্গ কমিটি

উপজেলা প্রতিবেদক

দীর্ঘ ৩ বছরেরও বেশি সময় পর অবশেষে পূর্ণাঙ্গ কমিটি পেলো ঢাকা জেলা (উত্তর) ছাত্রলীগ। দলীয় হাই কমান্ড এ কমিটি অনুমোদন দিয়েছে।

গতকাল বুধবার (১৬ জুন) রাতে বাংলাদেশ ছাত্রলীগের কেন্দ্রীয় কমিটির সভাপতি আল-নাহিয়ান খান জয় ও সাধরণ সম্পাদক লেখক ভট্রাচার্য স্বাক্ষরিত এক ছাত্রলীগের প্যাডে এই কমিটি অনুমোদন দেওয়া হয়।

যেখানে সাইদুল সাইদকে সভাপতি রেখে ৬৪ জনকে সহ-সভাপতি করা হয় ও মনিরুল ইসলামকে সাধারণ সম্পাদক করে সবার মন জয় করার জন্য ১১ জনকে যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক, ১১ জনকে সাংগঠনিক সম্পাদক ও ৪০ জনকে সহ-সম্পাদক করা হয়েছে। এছাড়া সব কয়টি পদেই একাধিক উপ-পদ দেওয়া হয়েছে।

এর আগে ২০১৮ সালের ১৪ ফেব্রুয়ারি ঢাকা জেলা ছাত্রলীগের উত্তরের কমিটি দেওয়া হয়েছিলো। সেই কমিটিতে সভাপতি হিসেবে সাইদুল ইসলাম ও সাধারণ সম্পাদক হিসেবে মনিরুল ইসলামের নাম ঘোষণা করা হয়।

তাদেরকে দায়িত্ব দেওয়া হয় তারা দলের ত্যাগী ও প্রকৃত সদস্যদের নিয়ে ৬ মাসের মধ্যে পূর্ণাঙ্গ কমিটি গঠন করে তাদের নামের তালিকা কেন্দ্রে পাঠাবেন। তবে দলীয় কোন্দল ও নতুন নেতৃত্বের মধ্যে দ্বন্দ্বের কারণে দীর্ঘ সময় পূর্ণাঙ্গ কমিটি অনুমোদন পায়নি। শেষমেশ গতকাল রাতে ২৩৮ জনকে সদস্য করে কমিটি অনুমোদন দেয় কেন্দ্রীয় ছাত্রলীগ। তবে কমিটিতে স্থান পেয়েছে নানাভাবে বির্তকিত নেতারা।

বৃহস্প্রতিবার (১৭ জুন) সকালে ঢাকা জেলা ছাত্রলীগের সভাপতি সাইদুল ইসলাম বলেন, ছাত্রলীগের কমিটির মেয়াদ কাল থাকে ১ বছর। গঠন তন্ত্রে ১ বছর মেয়াদ থাকলেও কেন্দ্রীয় কমিটি যখন যা চাইবেন তাই করতে পারবেন। তাদের নিদের্শনা মোতাবেক আমরা নতুন কমিটি নিয়ে সামনে আগোবে। আমাদের কমিটি পূর্নাঙ্গ করায় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা, ছাত্রলীগের কেন্দ্রীয় কমিটির সভাপতি ও সাধারণ সম্পাদকে আন্তরিকভাবে ধন্যবাদ জানাচ্ছি। আমাদের কাজের মাধ্যমে আমরা আগামীতে একটি উন্নত বাংলাদেশে পাবো ইনসাল্লাহ।

গঠন তন্ত্র অনুযায়ী কমিটিতে কতজন সদস্য থাকা দরকার? এমন প্রশ্নে তিনি বলেন, এই যা দিয়েছে তাই। আমাদের ঢাকা জেলা অনেক বড় এর জন্য আমাদের সদস্য সংখ্যাও বেশি আছে। ছাত্রলীগের গঠনতন্ত্র একটি জেলাতে ১৮১ জনে একটি কমিটি গঠন করা হয়। সে ক্ষেত্রে জেলা যদি অনেক বড় তাহলে সদস্যও বাড়িয়ে দেওয়া হয়।

সংবাদ সম্পর্কে আপনার মতামত দিন
তুমি এটাও পছন্দ করতে পারো
error: Content is protected !!