এবার শেয়ার ব্যবসায় সাকিব

শিরোনাম ডেস্ক

একসময় রেস্টুরেন্ট ব্যবসায়ে ছিলেন ক্রিকেটার সাকিব আল হাসান। এবার শেয়ার ব্যবসায় যুক্ত হয়েছেন বিশ্বসেরা এই অলরাউন্ডার। বুধবার (১৯ মে) সাকিবের মালিকানাধীন মোনার্ক হোল্ডিংসসহ ৩০টি নতুন ব্রোকারেজ হাউজ বা ট্রেকের (ট্রেডিং রাইট এনটাইটেলমেন্ট সার্টিফিকেট) অনুমোদন দিয়েছে বাংলাদেশ সিকিউরিটিজ অ্যান্ড এক্সচেঞ্জ কমিশন (বিএসইসি)। দেশের প্রধান শেয়ারবাজার ঢাকা স্টক এক্সচেঞ্জের (ডিএসই) সদস্য হিসেবে শেয়ার ব্যবসা করার সনদ (ট্রেক) পাবে প্রতিষ্ঠানটি।

ট্রেক হলো শেয়ারবাজারে লেনদেন করার জন্য মধ্যস্থতাকারী প্রতিষ্ঠান। যার মাধ্যমে বিনিয়োগকারীরা শেয়ার কেনা-বেচা করতে পারেন।
সূত্রে জানা গেছে, দেশের প্রধান শেয়ারবাজার ঢাকা স্টক এক্সচেঞ্জের (ডিএসই) প্রস্তাবিত মোট ৫৪টি ট্রেকের মধ্যে প্রাথমিক অবস্থায় ৩০ ট্রেকের অনুমোদন দেওয়া হয়েছে। এর মধ্যে সাকিব আল হাসানের মালিকানাধীন মোনার্ক হোল্ডিংস রয়েছে। প্রতিষ্ঠানটিতে তিনি চেয়ারম্যান হিসেবে রয়েছেন। আর ওই প্রতিষ্ঠানটিতে ব্যবস্থাপনা পরিচালক (এমডি) হিসেবে রয়েছেন কাজী সাদিয়া হাসান। নতুন ৩০টি প্রতিষ্ঠান অনুমোদন দেওয়ার ফলে ডিএসইর সদস্যভুক্ত মোট ব্রোকারেজ হাউজের বা ট্রেকের সংখ্যা বেড়াবে ২৮০টি।

পরিশোধিত মূলধন ১০ কোটি টাকাসহ সব বিধি-বিধান পরিপালন করায় ট্রেকের জন্য অনুমোদন পেয়েছে মোনার্ক হোল্ডিংস। এখন রেজিস্ট্রেশন ফি ও জামানতের টাকা জমা দিলেই প্রতিষ্ঠানটি ব্রোকারেজ হাউজের ব্যবসা শুরু করতে পারবে।

চেয়ারম্যান সাকিব আল হাসানের মোনার্ক হোল্ডিংসের শেয়ার কেনা-বেচা করার জন্য ব্রোকারেজ হাউজ ছাড়াও আবাসন, ব্যবসা বিষয়ক পরামর্শক, বাজারজাতকরণ, আমদানি ও রপ্তানি এবং সম্পত্তি বন্ধক রাখার ব্যবসা রয়েছে।

তথ্য মতে, বর্তমানে শেয়ারবাজার নিয়ন্ত্রক সংস্থা বিএসইসির বিনিয়োগ শিক্ষা কার্যক্রমের শুভেচ্ছাদূত হিসেবে রয়েছে সাকিব আল হাসান। ইতোমধ্যে তিনি বিএসইসির হয়ে বিনিয়োগকারীদের সচেতনতা বাড়াতে বিভিন্ন প্রচারণামূলক কার্যক্রম অংশ নিয়েছেন।

এ বিষয়ে জানতে চাইলে সাকিব আল হাসানের মালিকানাধীন মোনার্ক হোল্ডিংসের ব্যবস্থাপনা পরিচালক কাজী সাদিয়া হাসান বলেন, ‘আমাদের ব্রোকারেজ হাউজটি মাত্র এনলিস্টেড হয়েছে। তাই এ বিষয়ে আমি কথা বলতে চাচ্ছি না। এ বিষয়ে পরে কথা হবে।’

জানতে চাইলে বিএসইসির কমিশনার অধ্যাপক ড. শেখ শামসুদ্দিন আহমেদ বলেন, ‘ডিএসইর প্রস্তাবিত প্রতিষ্ঠানগুলোর মধ্যে প্রাথমিক অবস্থায় নতুন ৩০টিকে ট্রেকের অনুমোদন দেওয়া হয়েছে। বাকি প্রতিষ্ঠানগুলোর অধিকতর যাচাই-বাছাই শেষে অনুমোদন দেওয়া হবে।’

এদিকে ডিএসইর ভারপ্রাপ্ত ব্যবস্থাপনা পরিচালক হিসেবে দায়িত্ব পালন করা প্রধান পরিচালন কর্মকর্তা (সিওও) সাইফুর রহমান মজুমদার বলেন, ‘প্রাথমিক পর্যায়ে ৩০টি প্রতিষ্ঠানকে নতুন ট্রেকের অনুমোদন দিয়েছে। প্রস্তাবিত বাকি প্রতিষ্ঠানগুলোকে পর্যায়ক্রমে অনুমোদন দেওয়া হবে।’

কেআরআর

সংবাদ সম্পর্কে আপনার মতামত দিন
তুমি এটাও পছন্দ করতে পারো
error: Content is protected !!
%d bloggers like this: