লাশ পাঠাতে ৪শত বাহরাইনি দিনার চাইল বাংলাদেশ দূতাবাস
টাকার অভাবে বাহরাইনে মর্গে পড়ে আছে জিয়াউলের লাশ

জনশক্তি রিপোর্ট : জীবিকার তাড়নায় মধ্যপ্রাচ্যের দেশ বাহরাইনে পাড়ি জমিয়ে ছিলো রাজশাহীর বাগমারা উপজেলার ভবানীগঞ্জ ইউনিয়নে মিরপুর গ্রামের যুবক জিয়াউল হক।

গত ২৩ অক্টোবর বুধবার বিকাল ৪টার দিকে বাহরাইনের রাজধানী মানামায় মাচ্ছিচক এলাকায় হার্ট অ্যাটাকে মারা যায় জিয়াউল হক।

বৈধ ভিসা না থাকায়, হতভাগ্য জিয়াউল হকের নিথর দেহ পড়ে আছে সালমানীয়া মেডিকেল কমপ্লেক্স হাসপাতালের মর্গে। টাকার অভাবে লাশ দেশে পাঠানো যাচ্ছে না।

জিয়াউল হকের মামা বাহরাইন প্রবাসী লুৎফর রহমান জানান, গত তিনবছর আগে আমার ভাগিনা ফসলের জমি বন্ধক এবং সুদে টাকা নিয়ে বাহরাইন আসে। এক বছর না যেতেই কোম্পানি তার ভিসা বাতিল করে দেয়। এরপর কোম্পানি থেকে পালিয়ে দৈনিক হাজিরা ভিত্তিক কাজ করে।  গত বুধবার বিকেল সাড়ে ৪টার দিকে জিয়াউল হক কাজে থেকে ফিরে রান্নাবান্না করে গোসলখানায় গিয়ে হার্ট অ্যাটাকে মারা যায়। বর্তমানে তার লাশ মর্গে পড়ে আছে।

লাশ দেশে পাঠাতে মানামা বাংলাদেশ দূতাবাসে এক কর্মকর্তার সাথে যোগাযোগ করা হলে, জিয়াউল হকের লাশ বাংলাদেশ পাঠাতে বাহরাইনের ৪শত ডিনার টাকা লাগবে বলে জানান।

সংবাদ সম্পর্কে আপনার মতামত দিন
তুমি এটাও পছন্দ করতে পারো
error: Content is protected !!