দুর্ঘটনায় সেতুর রেলিং ভেঙ্গে নিচে, দুই সপ্তাহেও হয়নি মেরামত

নিজস্ব প্রতিবেদক

ঢাকা-আরিচা মহাসড়কের ধামরাইয়ে দূরপাল্লার বাসের ধাক্কায় একটি গুরুত্বপূর্ণ সেতুর রেলিং ভেঙ্গে প্রায় দুই সপ্তাহ ধরে নিচে পড়ে আছে। সওজ কতৃপক্ষ বিষয়টি অবগত থাকলেও দুর্ঘটনাপ্রবণ এই মহাসড়কের গুরুত্বপূর্ণ এই সেতুটি এখনও মেরামত হয়নি।

স্থানীয়রা জানান, মাঝে মধ্যেই এই মহাসড়কে দুর্ঘটনায় হতাহতের ঘটনা ঘটে। কিন্তু এই সেতুর রেলিংটি এতদিন ধরে ভেঙ্গে পড়ে থাকলেও এটা মেরামত করা হয়নি। এতে করে যে কোন মুহূর্তে বিশেষ করে রাতের বেলায় বড় দুর্ঘটনায় প্রাণহানি হতে পারে।

তবে সওজ কতৃপক্ষ বলছেন, দুর্ঘটনাকবলিত সেতুটির ওই রেলিং বিশেষ ধরণের মেটাল দিয়ে তৈরি হওয়ায় তা সহজলভ্য নয়। তাই মেরামতে বিলম্ব হচ্ছে।

বুধবার বিকেলে ব্যস্ততম ঢাকা-আরিচা মহাসড়কের ধামরাইয়ের বাথুলি স্ট্যান্ড থেকে মানিকগঞ্জ মুখে প্রায় এক’শ গজ দূরেই কাইস্টাখালী খালের উপর নির্মিত সেতুটির ক্ষতিগ্রস্ত রেলিং নজরে পড়ে।

এর আগে ১০-১২ দিন আগে দুর্ঘটনাকবলিত হয়ে একটি বাসের সাথে ধাক্কা লেগে সেতুটির রেলিং ক্ষতিগ্রস্ত হয় বলে জানায় হাইওয়ে পুলিশ।

ধামরাই উপজেলার বারোবাড়িয়া এলাকার বাসিন্দা আরিফুল ইসলাম বলেন, ‘প্রায় প্রতিদিনই এই মহাসড়ক দিয়ে আমি মোটরসাইকেল নিয়ে যাতায়াত করি। বেশ কয়দিন যাবৎ ওই ব্রিজের রেলিংটি ভাঙ্গা অবস্থায় দেখছি। শুনেছি, কিছু দিন আগে একটা বাস ব্রিজের রেলিংয়ের সাথে ধাক্কা লেগে এটা ভেঙ্গে গেছিলো। কিন্তু এখনও মেরামত হয়নি। আবারো যদি কোন গাড়ি আগের মতো এই জায়গায় দুর্ঘটনা পড়ে তাহলে নিশ্চিত সেটা ব্রীজের নিচে পড়ে যাবে।’

গোলরা হাইওয়ে থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মনিরুল ইসলাম বলেন, ’১০-১২ দিন আগে সওজ কতৃপক্ষের মাধ্যমে বাথুলি এলাকায় ব্রীজের উপর দুর্ঘটনার খবর পাই। গিয়ে দেখা যায়, নূরে-কাবা পরিবহনের একটি বাস নিয়ন্ত্রণ হারিয়ে সেতুর রেলিংয়ে সাথে ধাক্কা লেগে দুর্ঘটনা ঘটে। তবে কোন হতাহত পাইনি আমরা। বাসের ধাক্কায় সেতুর একপাশের রেলিংটি পুরোপুরি ভেঙ্গে যায়। ভাঙ্গা বেশির ভাগ অংশ সেতুর নিচে খালের উপর ঝুলেছিলো। তখন সওজ কতৃপক্ষের উপস্থিতিতে মামলা দায়ের ও জরিমানা করে বাসটি ছেড়ে দেওয়া হয়।’

তিনি আরও বলেন, ‘এই মহাসড়ক দিয়ে প্রতিদিন অসংখ্য গাড়ি চলাচল করে। মাঝে মধ্যেই এখানে দুর্ঘটনার খবর পাই আমরা। তাই সেতুটি এখন অত্যন্ত দুর্ঘটনাপ্রবণ। যত দ্রুত সম্ভব এটা মেরামত করা উচিত।’

ঢাকা বিভাগের মানিকগঞ্জ জেলার নয়ারহাট শাখার সড়ক ও জনপথ বিভাগের উপ-সহকারী প্রকৌশলী নজরুল ইসলাম বলেন, ‘সেতুটির ক্ষতিগ্রস্ত রেলিংটা অলরেডি মেরামত করার ঠিকাদার আছে। উনি রেলিংটা মেরামত করে দিবেন। আসলে সেতুর রেলিংয়ে যে পাইপ গুলা আমরা ইউজ করি (গারজেল), এটা একটু স্পেশাল। ওগুলা খুব একটা সুলভ না। আমাদের এখানে এটার ডিস্ট্রিবিউটর কম। ঠিকাদার ওইটা নিয়া আসতেছে। আমি গতকালকেও তার সাথে কথা বলেছি। আমার মনে হয় ওইটা মেরামত হইতে আর বেশি দিন লাগবে না।’

সংবাদ সম্পর্কে আপনার মতামত দিন
তুমি এটাও পছন্দ করতে পারো
error: Content is protected !!