বিনামূল্যের বই ৬ টাকা কেজিতে বিক্রি করলেন প্রধান শিক্ষক

নিজেস্ব প্রতিবেদক

সুনামগঞ্জের ধর্মপাশায় বিনামূল্যের পাঠ্যবই ছয় টাকা কেজি দরে বিক্রি করে দিয়েছেন সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক।
উপজেলার পাইকুরাটি ইউনিয়নের বেরীকান্দি বড়খলা সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক আলী নূর খান বিনামূল্যের পাঠ্যবই ছয় টাকা কেজি দরে বিক্রি করেছেন। এ ঘটনায় তাকে কারণ দর্শানোর (শোকজ) নোটিশ দিয়েছেন উপজেলা প্রাথমিক শিক্ষা কর্মকর্তা।

মঙ্গলবার (১৮ মে) রাতে প্রায় ৬০০ কেজি সরকারি বই ও কার্টনসহ ভ্যানচালক মো. শহীদ মিয়াকে আটক করা হয়। বুধবার (১৯ মে) দুপুরে জিজ্ঞাসাবাদ শেষে তাকে ছেড়ে দেওয়া হয়।‍ জিজ্ঞাসাবাদে তিনি পুলিশকে জানান আলী নূর খানের কাছ থেকে এসব বই কিনেছেন।

পুলিশ ও এলাকাবাসী জানায়, মঙ্গলবার বিকেল ৫টার দিকে ছয় টাকা কেজিতে ৬০০ কেজি বই ও কার্টন ফাতেমানগর গ্রামের ভ্যানচালক শহীদ মিয়ার কাছে বিক্রি করেন শিক্ষক আলী নূর খান। বই নিয়ে যাওয়ার পথে বিদ্যালয়ের সামনের সড়কে ভ্যানটি আটক করেন এলাকাবাসী। খবর পেয়ে বইগুলো উদ্ধার ও ভ্যানচালককে আটক করে থানায় নিয়ে যায় পুলিশ।

প্রধান শিক্ষক আলী নূর খান বলেন, ‘বিদ্যালয়ের পুরাতন বই ও কার্টনগুলো উপজেলা শিক্ষা অফিসে জমা দেওয়ার জন্য ব্যবস্থা করেছিলাম। আমি এসব বই বিক্রি করিনি।’

ভ্যানচালক শহীদ মিয়া বলেন, ‘শিক্ষক আলী নূর খানের কাছ থেকে ছয় টাকা কেজিতে এসব বই ও কার্টন কিনেছি। এখন তিনি অস্বীকার করছেন।’

উপজেলা প্রাথমিক শিক্ষা কর্মর্কতা মানবেন্দ্র দাস বলেন, ‘এ ঘটনায় প্রধান শিক্ষককে শোকজ করা হয়েছে। তিন কার্য দিবসের মধ্যে জবাব দিতে বলা হয়েছে।’

ধর্মপাশা থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) খালেদ চৌধুরী বলেন, কালোবাজারে সরকারি বই বিক্রি হচ্ছে খবর পেয়ে অভিযান চালিয়ে উদ্ধার করা হয়। জিজ্ঞাসাবাদে ভ্যানচালক জানান শিক্ষকের কাছ থেকে বই কিনেছেন। এজন্য তাকে ছেড়ে দেওয়া হয়েছে।’

উপজেলা নির্বাহী কর্মর্কতা (ইউএনও) মো. মুনতাসির হাসান বলেন, ‘এ ঘটনায় কৃষি সম্প্রসারণ কর্মর্কতা রফিকুল ইসলামকে প্রধান করে দুই সদস্যের তদন্ত কমিটি গঠন করা হয়েছে। কমিটিকে সাত কার্যদিবসের মধ্যে প্রতিবেদন জমা দিতে বলা হয়েছে। প্রতিবেদন পাওয়ার পর ব্যবস্থা নেওয়া হবে।’

কেআরআর

সংবাদ সম্পর্কে আপনার মতামত দিন
তুমি এটাও পছন্দ করতে পারো
error: Content is protected !!
%d bloggers like this: