শিশুদের নাম ‌‘তিতলি’ রাখার হিড়িক

ঘূর্ণিঝড় তিতলির প্রভাবে ভারতের ওড়িশা প্রদেশের গঞ্জাম, জগতসিংপুর এবং নয়াগড় জেলার কয়েকশো পরিবার এখনও রয়েছে ত্রাণ শিবিরে। এপর্যন্ত ১২ জনের মৃত্যুর খবর মিলেছে। তবে এসময় বা তারপর যে সব কন্যাসন্তানরা জন্মেছে, তাদের নাম তিতলি দেওয়ার ধুম পড়ে গিয়েছে বাবা, মায়েদের মধ্যে।

গত বৃহস্পতিবার সকাল ৬টা নাগাদ ঘণ্টায় ১৫০ কিলোমিটার বেগে পলাসায় আছড়ে পড়েছিলো ঘূর্ণিঝড় তিতলি। সেদিনই ছত্রপুর হাসপাতালে সকাল ৬টা ৫ মিনিট এবং ৬টা ১২ মিনিটে যমজ কন্যা হয় গৃহবধূ আল্লেম্মার (২২)। বড় মেয়ের জন্মের সময়ই তিতলি আছড়ে পড়েছিল। তাই এখন দুই মেয়ের নামই তিতলি রাখতে চান তিনি। ছত্রপুর হাসপাতালে

ওই দিনই সকাল সাতটা নাগাদ মেয়ের জন্ম দেন প্লুরুগড়ার বাসিন্দা, ২৯ বছরের বিমলা দাস। তিনিও তার মেয়ের নাম রাখতে চান তিতলি। একথা জানিয়েছেন ছত্রপুরের সাব ডিভিশনাল স্বাস্থ্য অফিসার কানুচরণ পাত্র।

বুধবার মধ্যরাত থেকে বৃহস্পতিবার সকাল ১১টার মধ্যে আস্কা অঞ্চলের স্থানীয় স্বাস্থ্যকেন্দ্রে ৯টি শিশু জন্মায়। স্বাস্থ্যকেন্দ্রের চিকিৎসক জানালেন, ওই শিশুরা সবাই মেয়ে এবং তাদের বাবা, মায়েরা তাদের সবার নাম রেখেছেন তিতলি।

হিঞ্জলি এলাকার স্বাস্থ্যকেন্দ্রে বুধবার সন্ধ্যায় চারটি শিশু জন্মেছে। তার মধ্যে একটি কন্যাসন্তান। তার বাবা, মা–ও তার নাম রেখেছেন তিতলি।

গঞ্জামের মুখ্য স্বাস্থ্য অফিসার জানালেন, ঝড়ের সময় তারা ১০০ জন অন্তঃসত্ত্বাকে ভর্তি করেছিলেন হাসপাতালে। তাদের মধ্যে ৬৪ জন সন্তানের জন্ম দিয়েছেন নিরাপদে।

সংবাদ সম্পর্কে আপনার মতামত দিন
তুমি এটাও পছন্দ করতে পারো
error: Content is protected !!