১০ দফা দাবীতে বরিশালে ইসলামী আন্দোলনের বিক্ষোভ ও স্মারকলিপি পেশ

আব্দুল্লাহ মামুন,বরিশালঃনগরীর অশ্বিণী কুমার টাউনহল চত্বরে ইসলামী আন্দোলন বাংলাদেশ বরিশাল জেলা ও মহানগর শাখার উদ্যোগে সকাল ১০ ঘটিকায় , দলের আমীর হযরত পীর সাহেব চরমোনাই ঘোষিত নির্বাচনকালীন নিরপেক্ষ সরকারসহ ১০ দফা দাবীতে বিক্ষোভ সমাবেশ ও জেলা প্রশাসক বরাবর স্মারকলিপি পেশ করা হয়।

ইসলামী আন্দোলন বাংলাদেশ বরিশাল মহানগর সহ-সভাপতি মাওলানা আনোয়ার হোসাইন জিহাদীর সভাপতিত্বে এবং জেলা সেক্রেটারী উপাধ্যক্ষ মাওলানা মুহাম্মাদ সিরাজুল ইসলাম এর সঞ্চালনায় বিক্ষোভ সমাবেশে অনুষ্ঠিত হয় উক্ত অনুষ্ঠানে বক্তারা বলেন- নির্বাচনের তফসিল ঘোষণার পূর্বে জাতীয় সংসদ ভেঙ্গে দিতে হবে। তারা নতুন নির্বাচন কমিশন গঠন করে নিরপেক্ষ সরকারের অধীণে নির্বাচন দেয়ারও দাবি জানান।
তারা নির্বাচনকালীন নিরপেক্ষ সরকার গঠনের পর থেকে সেনা মোতায়েন এবং নির্বাচনের দিন তাদের হাতে বিচারিক ক্ষমতা দিতে হবে। বক্তারা রেডিও, টিভিসহ সকল সরকারী বেসরকারী গণমাধ্যমে সবাইকে সমান সুযোগ দেয়ার দাবিসহ রাজনৈতিক নেতা কর্মীদেরকে হয়রানী বন্ধ এবং কোটা সংস্কার আন্দোলন ও নিরাপদ সড়ক আন্দোলনে গ্রেপ্তারকৃত সকল ছাত্রদের মুক্তি ও সকল মামলা প্রত্যাহার দাবি করেন।

তারা বলেন, দুর্নীতিবাজদেরকে নির্বাচনে অযোগ্য ঘোষণা এবং নির্বাচনে ইভিএম ব্যবহার বন্ধ রাখতে হবে। জাতীয় নির্বাচনে সংখ্যানুপাতিক প্রতিনিধিত্ব পদ্ধতির নির্বাচন ব্যবস্থা প্রবর্তন এবং ডিজিটাল নিরাপত্তা আইন বাতিল করতে হবে।

ইসলামী আন্দোলনের কেন্দ্রঘোষিত ১০ দফা দাবিগুলো হলো-

১. নির্বাচনের তফসিল ঘোষণার আগে জাতীয় সংসদ ভেঙে দিতে হবে।

২. সব নিবন্ধিত রাজনৈতিক দলের মতামত নিয়ে নির্বাচনকালীন নিরপেক্ষ সরকার গঠন করতে হবে।

৩. বর্তমান নির্বাচন কমিশন বাতিল করে নতুন নির্বাচন কমিশন গঠন করতে হবে।

৪. তফসিল ঘোষণার পর থেকে নির্বাচিত সরকার ক্ষমতা গ্রহণের আগ পর্যন্ত সশস্ত্রবাহিনী মোতায়েন করতে হবে এবং নির্বাচনের দিন সশস্ত্রবাহিনীর হাতে বিচারিক ক্ষমতা দিতে হবে।

৫. নির্বাচনে সব দলের জন্যে সমান সুযোগ তৈরি করতে হবে। রেডিও, টিভিসহ সব সরকারি-বেসরকারি গণমাধ্যমে সবাইকে সমান সুযোগ দিতে হবে এবং রাজনৈতিক দলের নেতাকর্মীদের বিরুদ্ধে সব ধরনের হয়রানি বন্ধ করতে হবে।

৬. দুর্নীতিবাজদের নির্বাচনে অযোগ্য ঘোষণা করতে হবে।

৭. নির্বাচনে ইভিএম ব্যবহার বন্ধ রাখতে হবে।

৮. রাজনৈতিক স্থিতিশীলতা, জাতীয় সংহতি ও কার্যকর সংসদ প্রতিষ্ঠায় জাতীয় নির্বাচনে সংখ্যানুপাতিক প্রতিনিধিত্ব পদ্ধতির নির্বাচন ব্যবস্থা প্রবর্তন করতে হবে।

৯. কোটা সংস্কার অন্দোলন এবং নিরাপদ সড়ক আন্দোলনে গ্রেফতারকৃত ছাত্রদের মুক্তি এবং তাদের বিরুদ্ধে দায়ের করা সব মামলা প্রত্যাহার করতে হবে।

১০. গণমাধ্যম নিয়ন্ত্রণের উদ্দেশ্যে প্রণীত বিতর্কিত ডিজিটাল নিরাপত্তা আইন বাতিল করতে হবে।

সমাবেশে প্রধান অতিথির বক্তব্য রাখেন, ইসলামী আন্দোলন বাংলাদেশ বরিশাল মহানগর উপদেষ্টা ও ইসলামী শ্রমিক আন্দোলন এর কেন্দ্রীয় যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক মাওলানা সৈয়দ নাসির আহমাদ কাওছার। আরো বক্তব্য রাখেন, ইসলামী আন্দোলন বাংলাদেশ বরিশাল জেলা সহ-সভাপতি মাওলানা ইদরীস আলী, মহানগর সহ- সভাপতি মাওলানা লুৎফর রহমান, সেক্রেটারী মাওলানা জাকারিয়া হামিদী, সাংগঠনিক সম্পাদক শেখ শামসুল আলম মিলন, জেলা সাংগঠনিক সম্পাদক মাওলানা কাওছারুল ইসলাম, ইসলামী শ্রমিক আন্দোলন বরিশাল জেলা সভাপতি মাওলানা নাসির উদ্দিন রোকন ডাকুয়া, মহানগর সাধারণ সম্পাদক আহমাদ আলী তালুকদার, ইসলামী যুব আন্দোলন মহানগর সভাপতি মাওলানা নাসির উদ্দিন নাইস, জেলা সভাপতি মাওলানা কাজী বেলাল হাসান, ইসলামী শাসনতন্ত্র ছাত্র আন্দোলন এর কেন্দ্রীয় সদস্য ও বরিশাল মহানগর সভাপতি কে.এম.শরীয়াতুল্লাহ, কেন্দ্রীয় শুরা সদস্য ও জেলা সভাপতি মুহাম্মাদ ইবরাহীম হুসাইন প্রমূখ।

সংবাদ সম্পর্কে আপনার মতামত দিন
তুমি এটাও পছন্দ করতে পারো
error: Content is protected !!
%d bloggers like this: